DAM Celebrates the 104th birth anniversary of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman and National Children’s Day 2024

Dhaka Ahsania Mission has celebrated the 104th birth anniversary of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman. The day is celebrated as National Children’s Day across the country. The architect of independent Bangladesh, the undisputed leader of the Bengali nation, was born on this day in 1920 in a noble Muslim family in Tungipara, Gopalganj district.

In continuation of the observation of the day, on 10 March 2024 Dhaka Ahsania Mission with the help of KAAP-UUP Project funded by the King Abdullah Humanitarian Foundation celebrates the day with due dignity and respect. Under the initiative of KAAP-UUP Project, a discussion on Father of the Nation, drawing competition and lectures on childhood of Sheikh Mujibur Rahma were organized with the participation of KAAP-UUP Project Learners at Dhaka Ahsania Mission Head Office auditorium.

The program is chaired by Vice President of DAM Dr. Prof. Kazi Shariful Alam. General Secretary of DAM Engineer A.F.M Gholam Sharfuddin, Executive Director of DAM Md. Shajedul Qayyum Dulal and Joint Director of Education & TVET Sector Md. Moniruzzaman presents at the program.  The Executive Director of DAM said that Sheikh Mujibur Rahman is the architecture of the Bengali nation. He also told that our learners should know about the events of the day we are observing. learners should know about the importance and significance of the day. He requests the teachers to inform the learners about the significance of the days.General Secretary of DAM Engineer A.F.M Gholam Sharfuddin said that National Children’s Day carry the message for our children. It’s giving the message of the rights to the children. He told that we must have to obey the child’s rights. We will work together to ensure the rights of the children. We will take oath on this happy occasion of the Birth anniversary of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman that we will not break the rights.

Vice President of DAM Dr. Prof. Kazi Shariful Alam welcome the participants of the program. He says this program is making a value for DAM. We are together working for children and we are working to uprise the dream of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman.

After the discussion program prize-giving ceremony were held. At the end of the scheduled discussion program, the honorable guests presented the prizes to the winners of the drawing competition and the winners of the speeches presented.

position and Jannatul Nur Tulona –3rd  position. Similarly, in the winners of the speech competitions are: Meher Nigar stands– 1st position, Farjana Akhter – 2nd position and Mst. Naima Islam – 3rd  position. All the learners are the student of DAM Urban Community Learning Center (UCLC) in Mohammadpur & Mirpur.

Other pictures of the event:

Witnessing traumatized Trafficking Victims to turn around with Dhaka Ahsania Mission

On Wednesday, 14th February 2024, at morning, Dhaka Ahsania Mission (DAM) organized a District-level inception meeting of Ashshash phase II in the conference room of Jhenaidah District Commissioner’ s Office. The project is implemented by Dhaka Ahsania Mission (DAM) with the technical assistance of Winrock Internation and funded by the Embassy of Switzerland in Bangladesh.

The Deputy Commissioner of Jhenaidah, Mr. S. M. Rafiqul Islam. Presided over the event and concluded the event. Mr. Md. Sajedul Qayyum Dulal, the Executive Director of Dhaka Ahsania Mission was present as the chief guest of the meeting. The event was glorified with the presence of several special guests – Md. Azimul Ahsan, District Superintendent of Police, Jhenaidah; Dr. Shubhra Rani Debnath, Civil Surgeon, Jhenaidah; Md. Yarul Islam, Deputy Director, Local Administration; Md. Golam Nabi, Joint District Judge; Land Survey Tribunal and District Legal Aid Officer (Acting). Among the other guests, Md. Omar Faruk, Senior Manager, Training and Employment, Mrinmoy Mohajan, Policy Advocacy Specialist (Senior Manager) and other representatives of the partner organization, Wirock International; Upazila Chief executive officer; Sk. Mahabbat Hossen, Team Leader, Rights and Governance Sector of Dhaka Ahsania Mission;  District Women Affairs Officer; Department of Social Services; Department of Youth Development; National Legal Aid Services Centre; Sub-judge of Legal Aid Committee; ‘Surjer hashi’- Clinic; One Stop Crisis Center; Aid Foundation; Srizony Foundation; BRAC; President of Jhenaidah Press Club; Technical Training Center (TTC); Representatives of district administration; Executive committee members of various non-government organizations; Press Representatives and various dignitaries were present at the meeting.

In the event, a service beneficiary of Ashshash Phase-I shared her tragic experience of becoming a victim of trafficking and struggling turn around form her misfortune. She also expressed, how amid her struggle, Ashshash became her hope toward solitude. Followed by an open discussion and Informative documentation session, the presenters enlightened the honourable guests about the goal and objectives of the project. The open discussion created a democratic environment to unveil important feedback and awareness-raising thoughts from the guests on the ongoing counter trafficking-in-person scene of Bangladesh.

With the motto of “Divine and Humanitarian Services” and the humanitarian ethos of the founder, Khan Bahadur Ahsanullah, Dhaka Ahsania Mission (DAM) is services as a leading NGO in Bangladesh since 1958. Through different initiatives associated with repatriation, prevention, protection and prosecution, the organization embarked on a journey to counter the trafficking and various forms of slavery in 1997. Among the remarkable initiatives, establishment of Thikana Shelter Home for trafficking victims, Technical and Vocational Training centres and Drug Rehabilitation centres are well acknowledged. In continuation of the service toward humanity, the Ashshash phase II project will be implemented in 06 upazilas of greater Jhenaidah. The project will address several basic needs of the survivors such as, health, accommodation, mental stability, legal assistance, economic development etc and will also take collective efforts to mainstream the trafficking victims into the society as dignified citizens.

Human trafficking is a terrible crime worldwide. Especially, being located in a border area, the youth of Jhenaidah are at high risk of becoming trafficked each year. Not to mention that a trafficked woman or man becomes more helpless and vulnerable with the aversive effects of social stigma, shame and self-blame. Ashshash extends an opportunity for these people to reshape their lives with the services designed specifically toward ensuring their social and economic stability. Dhaka Ahsania Mission, as a social reintegration partner of Winrock Internal commits to be an inseparable part of this development journey for men and women who have experienced trafficking.

DAM forged a new partnership with Winrock International

Dhaka Ahsania Mission (DAM) forged a new partnership with Winrock International for the ‘Ashshash: For Men and Women who Have Escaped Trafficking (Phase-II)’ Project in Manikganj and Dhaka West.

The agreement was formally sealed at a ceremony held at CCLUB Resort and Convention Centre, Purbachol, attended by DAM’s Executive Director, Mr. Shajedul Qaiyum Dulal, Rights and Governance Sector Team Leader Sk. Mahabbat Hossen, and other senior colleagues of DAM, alongside the Ashshash-II project team.

This 3-year, 4-month project, supported by the Embassy of Switzerland in Bangladesh, is geared towards offering comprehensive services to survivors of human trafficking. Through strategic partnerships and bolstered institutional capacity, DAM and Winrock International anticipate that this collaboration will be pivotal in the fight against Trafficking in Persons in Bangladesh. Your cordial cooperation and necessary support are eagerly awaited for the effective implementation of this project.

Little Ducklings turns 6!!

Our journey began with 6 dedicated teachers and caregivers, and over the past five years, we’ve blossomed into a thriving community with 60+ passionate employees, spanning 6 branches, including our main daycare in Dhanmondi, an Elementary School (Little Ducklings Elementary School) catering to PG to KG2, and providing service to four corporate daycares strategically located within an international telecom company, an international health research organization, APEX Footwear, and Ha-Meem Group Limited. As we continue to evolve and enhance our offerings, we are excited about the ongoing process of growth and constant improvement.”

Quacktastic 6th birthday to our awesome daycare! Here’s to a year filled with quacks of fun, new friendships, and exciting adventures – let’s waddle into the New Year with lots of joy and feathered fun!

‘ঐশীপ্রেম ও মানবতার সেবায় হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.)’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.)-এর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য সেক্টরের উদ্যোগে ২৪ ডিসেম্বর ২০২৩, রবিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি কক্ষে ‘ঐশীপ্রেম ও মানবতার সেবায় হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.)’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. আবু তৈয়ব আবু আহমেদের সভাপতিত্বে সেমিনারে সেমিনারে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মুহা. বশিরুল আলম। আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও বিজ্ঞানী, বাংলাদেশ উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম শমসের আলী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্বধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান সহযোগী অধ্যাপক ড. ফাদার তপন ডি রজারিও, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক নির্বাহী পরিচালক ড. এম এহছানুর রহমান, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও গবেষক অধ্যাপক ড. মুহম্মদ ঈসা শাহেদী এবং সমাজত্ত¡বিদ, লেখক ও গবেষক ড. খন্দকার সাখাওয়াত আলী। সঞ্চালনা করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য ও ওয়াশ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদ।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মুহা. বশিরুল আলম বলেন, হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লাকে নিয়ে স্বল্প সংখ্যাক কাজ করার সুযোগ হয়েছিলো। সেখান থেকেই তাঁর সম্পর্কে আমি অনেক কিছু জানতে পারি। তিনি ছিলেন মানব প্রেমী। স্রষ্টার ইবাদত ও সৃষ্টের সেবাকে ব্রত নিয়েই ছিলো তাঁর চলা।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, কেবল শিক্ষা বিস্তার বা সংস্কারেই খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.) নিজকে নিয়োজিত রাখেননি, মানবকল্যাণ ও উন্নয়নে তিনি নিজকে ব্যাপৃত করেছিলেন। মানব জাতির কল্যাণের আলোকবর্তিকা নিয়ে উনবিংশ শতাব্দীর শেষার্ধে জন্মগ্রহণ করেছিলেন অবিভক্ত বাংলা ও আসামের শিক্ষা বিভাগের সহকারী পরিচালক, সমাজ সংস্কারক, আধ্যাত্মিক চিন্তাবিদ ও দার্শনিক হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.)।

এসময় বক্তারা আরোও বলেন, হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্ল (র.) লেখনী ও কর্ম থেকে বুঝা যায় তার চিন্তা-চেতনা জুড়ে ছিল সৃষ্টির প্রতি প্রকৃত প্রেম-ভালোবাসার চর্চা করা। মানবতার সেবার মধ্যমে স্রষ্টার সন্তুষ্টি অর্জন করতে চেয়েছেন। তিনি যেখানে গেছেন যেমনই থেকেছেন তিনি স্রষ্টার বিশালত্বকে উপলদ্ধি করেছেন। পরমাত্মার থেকে নিজ নিজ মানবাত্মার আবির্ভাব ও বিচরণ সেই পরমাত্মার জ্ঞানলাভ, সেই পরমাত্মার প্রেমে মশগুল বা বিভোর হয়ে প্রেমময়ে আত্মসমর্পণের মধ্যে মানবজীবনের চরম লক্ষ্য ও পরম সার্থকতা। পরমাত্মা জ্ঞানের তিনটি মার্গ- জ্ঞানমার্গ, কর্মমার্গ ও প্রেমমার্গ। প্রেমময়ের সন্তুষ্টি সাধন হজরত খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা’র জীবনের একমাত্র ব্রত ছিল। ধর্ম আর কর্মের মধ্যে সংযোগ সাধন করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.) মানবতার কল্যাণে কাজ করেছেন ও দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন। সমগ্র জীবনে মানবের মঙ্গল চেয়েছিলেন খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা। তিনি বিভিন্ন বিষয়ে তিনি শতাধিক বই লিখেছেন, বর্তমান সময়ে তাঁর বই বেশি বেশি পড়তে হবে, বুঝতে হবে ও তার পথকে অনুসরণ করতে হবে।

খানবাহাদুর আহছানউল্লার জন্মবার্ষিকীতে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা

ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ ও শিক্ষা সংস্কারক হজরত খানবাহাদুর আহছানউল্লা (র.) এর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য সেক্টরের আয়োজনে মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে শিশু-কিশোর চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই অডিটোরিয়ামে এই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। আগামী প্রজন্মকে খানবাহাদুর আহছানউল্লার আদর্শ, মানবতার কল্যাণ, সমাজ কল্যাণ এবং শিশু-কিশোর ও তরুণদের নৈতিক প্রজন্ম হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী শরিফুল আলমের সভাপতিত্বে প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির মহাপরিচালক ও ছড়াকার আনজির লিটন।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য ও ওয়াশ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদ। ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য সেক্টরের সহকারী পরিচালক (মেডিক্যাল সার্ভিসেস) ডা. নায়লা পারভীনের সঞ্চালনায় প্রতিযোগিতার বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিশু একাডেমির চিত্রকলা প্রশিক্ষক জাহিদুর রহমান সুমন, অনিক সাহা সুমিত এবং ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য সেক্টরের ইয়ুথ ফোরাম ফর হেলথ অ্যান্ড ওয়েলবিয়িংয়ের সমন্বয়কারী মারজানা মুনতাহা।

বক্তারা বলেন, মুসলিম শিক্ষার প্রতিবন্ধকতা ও অনাগ্রহ দূরীকরণে এবং অগ্রগতি সাধনের অনুকূলে উচ্চ পর্যায়ে নীতি নির্ধারণে খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লার ভূমিকা ছিল অগ্রগণ্য। তার প্রচেষ্টায় প্রথমে অনার্স ও এমএ পরীক্ষার খাতায় নামের পরিবর্তে ক্রমিক নং (রোল নং) লেখার রীতি প্রবর্তিত হয়।

প্রতিযোগিতা দুই গ্রুপে অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ‘ক’ গ্রুপে ৪র্থ থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বিষয় ছিল ‘নিরাপদ সড়ক, নিরাপদ আমি’ এবং ‘খ’ গ্রুপে ৭ম শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত, যাদের বিষয় ছিলো ‘মানবতার সেবায় তারুণ্য’। প্রতিযোগিতায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।

খানবাহাদুর আহছানউল্লা (র.)-এর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের প্রতিষ্ঠাতা হজরত খানবাহাদুর আহছানউল্লা (র.)-এর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ ঢাকা আহছানিয়া মিশন প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দিনব্যাপী এই কর্মসূচিতে শতাধিক ব্যাগ রক্ত সংগৃহীত হয়।
  
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন ও সাবেক সিনিয়র সচিব আব্দুস সামাদ ফারুক। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের কোষাধ্যক্ষ ডা. আব্দুল জলিল, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী শরিফুল আলম। 

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের নির্বাহী পরিচালক সাজেদুল কাইয়ুম দুলালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন স্বাস্থ্য ও ওয়াশ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন স্বাস্থ্য সেক্টরের সহকারী পরিচালক ড. নায়লা পারভীন।

ডা. আব্দুল জলিল তার বক্তব্যে বলেন, রক্তদান একটি মানবসেবা ও পূণ্যের কাজ। রক্তদানে কোন ক্ষতি হয় না বরং উপকার হয়। রক্তদান হৃদরোগ ও হার্ট এটাকের ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে। বর্তমানে সরবরাহকৃত রক্তের মধ্যে বেশিরভাগ আসে পেশাদার রক্তদাতাদের কাছ থেকে যা অত্যন্ত ভয়ংকর কেননা পেশাদার রক্তদাতাদের মাধ্যমে সিফিলিস, এইডসসহ ভনায়ক কিছু রোগ সংক্রমণের ভয় থাকে।

অধ্যাপক ড. কাজী শরিফুল আলম বলেন, রক্তদানের মাধ্যমে সৃষ্টির সেবা করা হয় যেটা ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের মূলনীতির অংশ। সুতরাং সবাইকে স্বেচ্ছায় রক্তদানে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

আব্দুস সামাদ ফারুক বলেন, সৃষ্টির সেবার মাধ্যমেই স্রষ্টাকে পাওয়া সম্ভব আর রক্তদানের মাধ্যমে আপনারা সেই সুযোগটা গ্রহণ করছেন। এজন্য আপনাদের প্রতি অভিনন্দন জানাই। এ কাজের মাধ্যমে আপনারা খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.) আদর্শ ধারণ করবেন বলে আমি মনে করি।

ইকবাল মাসুদ তার স্বাগত বক্তব্যে শহীদ বাপ্পী স্মৃতি সংসদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, রক্তদানের মত কর্মসূচি আহ্ছানিয়া মিশন শুরু করলো যেটা সবার প্রচেষ্টায় আমরা অব্যাহত রাখতে চাই।