ব্যবসায়ে নৈতিকতার মানদণ্ড মেনে চলার আহ্বান

ব্যবসায়ে নৈতিকতার মানদণ্ড মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন বিশিষ্টজনরা। তারা বলেছেন, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান গঠনের প্রধানতম কারণ মুনাফা। এ ব্যাপারে অধিকাংশ মানুষের দ্বিমত না থাকলেও এই মুনাফা লাভের প্রক্রিয়া, পরিমাণ এবং মুনাফা লাভের হার নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মত রয়েছে। আজ রবিবার রাজধানীর আহ্ছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সেমিনার হলে বক্তারা এসব কথা বলেন।

এথিক্স এডুকেশন ফর সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট (ইটুএসডি) ও দ্যা স্কুল অব বিজনেস, আউস্ট যৌথভাবে ‘ইমপোরটেন্ট অব বিজনেস এথিক্স : পারসপেক্টিভ বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারটির আয়োজন করে। ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের প্রেসিডেন্ট কাজী রফিকুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন সোয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান খবির উদ্দিন খান, আহ্ছানউল্লা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ফাজলি ইলাহী, আহ্ছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অব বিজনেস অ্যান্ড সোশ্যাল সাইন্সেস-এর ডিন প্রফেসর ড. সালেহ মো. মাসেদুল ইসলাম, ইটুএসডির সিইও কাজী আলী রেজা প্রমুখ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএর অধ্যাপক ড. মেলিটা মেহজাবিন।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, মুনাফার আরো নানা ধরনের কারসাজি লক্ষ্য করা যায়।

যেমন- ওজনে কম দেওয়া, খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল, পচা-বাশি খাবার, মেয়াদ-উত্তীর্ণ খাবার, ফল, শাক-সবজিতে নানা ধরনের জীবন-ধারণের জন্য ক্ষতিকর ক্যামিকেল মিশানো, নিত্য দিনকার ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই ধরনের অনৈতিক ব্যবসায়িক মুনাফা জনগণের জীবনমানে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। বক্তারা আরো বলেন, নৈতিকতার মানদণ্ড মেনে চলে ব্যবসা করা দরকার। ব্যবসা শুধুই নিজের কল্যাণের জন্য নয়। বরং জনকল্যাণও ব্যবসায়িক ব্যবস্থাপনার একটি অংশ। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পরিচালকরা যদি এগুলো নিয়ে ভেবে-চিন্তে ব্যবসা পরিচালনা করেন, সেক্ষেত্রে তার কর্মীবাহিনী যেমন নৈতিক মানদণ্ড মেনে চলার চেষ্টা করবেন-তেমনি গোটা জাতি উপকৃত হবে এবং টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত হবে। নৈতিকতা-বর্জিত ব্যবসা অজানা অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

সেমিনারে আহ্ছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শেষ বর্ষের দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী ফ্যাকাল্টি মেম্বারগণ উপস্থিত ছিলেন।