Founder

Khan Bahadur Ahsanullah (R.)

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস ২০২৩ উদযাপন উপলক্ষ্যে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের শিক্ষা সেক্টরের উদ্যোগে গতকাল রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ মিশন অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার ব্যুরোর মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মো. আবুল কালাম আজাদ। অনুষ্ঠানে মূল আলোচক ছিলেন গ্লোবাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী শরিফুল আলমের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের নির্বাহী পরিচালক সাজেদুল কাইয়ূম দুলাল, সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার এএফএম গোলাম শরফুদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর পরিচালক (যুগ্ম সচিব), প্রশাসন, অর্থ ও বাস্তবায়ন মু. নুরুজ্জামান শরীফ, এনডিসি। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের শিক্ষা ও টিভিইটি সেক্টরের যুগ্ম পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান। অনুষ্ঠানে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন মিশনের শিক্ষা সেক্টরের কো-অর্ডিনেটর (এমএন্ডই) শেখ শফিকুর রহমান।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, পড়তে, লিখতে, অনুধাবন ও গণনা করতে পারার পাশাপাশি মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারাকে বর্তমানে সাক্ষরতার সংজ্ঞা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। চলতি বছরে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের শিক্ষা সেক্টরের উদ্যোগে ৬২ হাজার বিদ্যালয় বহির্ভূত ও ঝরেপড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে।

বক্তারা বলেন, দেশে বর্তমানে সাক্ষরতার হার ৭৬.০৮ শতাংশ। ঝরেপড়া বা নিরক্ষরতার হার ২৪ শতাংশ। এই ২৪ শতাংশ জনসংখ্যাকে নিরক্ষর রেখে আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে সরকার ঘোষিত স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরি করা সম্ভব হবে না।

বক্তারা আরো বলেন, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের প্রতিষ্ঠাতা খানবাহাদুর আহ্ছানউল্লা (র.) পরীক্ষার খাতায় নামের পরিবর্তে রোল নম্বর লেখার নীতি প্রবর্তন করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। প্রকৃতপক্ষে ভালো শিক্ষক না পেলে ভালো শিক্ষা দেয়া সম্ভব হবে না। মানবসম্পদ উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। দেশের সাক্ষরতা উন্নয়নে ও সরকারের শিক্ষা লক্ষ্য (এসডিজি-৪) অর্জনকে আরো বেগবান করতে হবে।

উল্লেখ্য, ইউনেস্কো কতৃক নির্ধারিত ২০২৩ সালের আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হলো- ‘পরিবর্তনশীল ও শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে সাক্ষরতার প্রসার’।