ড. এ. কে মনসুর আহ্ছানিয়া মিশন ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট উদ্বোধন

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অবস্থার বৃদ্ধি ও বিনিয়োগের সুযোগ সহ বিশাল সম্ভাবনাময় মানবসম্পদ সমৃদ্ধ একটি দেশ, দক্ষ মানবসম্পদের প্রয়োজনীয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। দক্ষ মানবসম্পদ বিদেশে কর্মসংস্থান করার জন্যও যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। তবে বর্তমান পরিস্থিতিটি হ’ল, দেশের জনসংখ্যার একটি বড় অংশের ব্যবসা ও শিল্পের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কিন্তু সেই হিসেবে উপযুক্ত দক্ষতা এবং শিক্ষা নেই। ফলস্বরূপ, তারা জিডিপিতে কোনও উৎপাদনশীল অবদান রাখতে পারে না বা তাদের নিজস্ব আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন করতে পারে না। এই প্রয়োজনীয়তাগুলি স্বীকৃতি পেয়েছে এবং জাতীয় দক্ষতা বিকাশ নীতি ২০১১ এবং টিভেট সংস্কার উদ্যোগের সাথে একত্রিত হয়েছে। শীর্ষস্থানীয় অভিজ্ঞ এনজিও হিসেবে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন শহর ও গ্রামীণ উভয় ক্ষেত্রেই অগ্রাধিকার কর্মসূচী হিসাবে প্রয়োজন ভিত্তিক দক্ষতা প্রশিক্ষণ নিয়ে এগিয়ে এসেছে। ১৯৮৫ সাল থেকে ড্যাম ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটগুলির মাধ্যমে বিভিন্ন জীবিকার দক্ষতা বিকাশের প্রশিক্ষণ কোর্স সরবরাহ করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় আজ ১৬ জানুয়ারি ২০২১ ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার লক্ষ্যে অত্যাধুনিক সুবিধা সম্বলিত ড. এ. কে মনসুর আহ্ছানিয়া মিশন ভোকেশনাল ট্রেনি ইনস্টিটিউট ঢাকার আশুলিয়া, দাম পাড়ায় উদ্বোধন করলো। উক্ত উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জনাব কাজী রফিকুল আলম, প্রেসিডেন্ট, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, ড. এস এম খলিলুর রহমান, জেনারেল সেক্রেটারি, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, ড. এম এহছানুর রহমান, নির্বাহী পরিচালক, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, জনাব আনিসুল কবির জাসির, উপদেষ্টা, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, জনাব মোঃ সাহিদুল ইসলাম. হেড অব এডুকেশন এন্ড টিভেট সেক্টর, জনাব রাহনুমা আহমেদ, ট্রেজারার খালেদ মনসুর ট্রাষ্ট, কাজী জামিল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, লটো স্পোর্টন ওয়্যার, জনাব রাজিউল হাসান জনাব ড. এম মনসুর এর নিকট আত্মীয়।

উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত সম্মানিত অতিথি বৃন্দ তাদের মূল্যবান বক্তব্য রাখেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রথমেই টিভেট সেক্টরের সমন্বয়কারী জনাব এস. এম. জাহাঙ্গীর ‘ড. এ. কে মনসুর আহ্ছানিয়া মিশন ভোকেশনাল ট্রেনি ইনস্টিটিউট’ এর পরিচয় তুলে ধরেন এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে সকলকে অবহিত করেন। জনাব মোঃ সাহিদুল ইসলাম, হেড অব এডুকেশন টিভেট স্বাগত বক্তব্যে টিভেট সেক্টরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এবং উপস্থিত সকলকে উক্ত অনুষ্ঠানে স্বাগত জানান। তিনি আরো বলেন পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে, পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হলে আমাদের কারিগরি দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে।

জনাব আনিসুল কবির জাসির, উপদেষ্টা, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন খালেদ মনসুর ট্রাষ্টের সাথে উপস্থিত সকলকে পরিচয় করিয়ে দেন এবং উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, খালেদ মনসুর ট্রাস্ট, একটি অলাভজনক, বেসরকারী সেচ্ছাসেবী উন্নয়নমূলক সংগঠন। খালেদ মনসুর ট্রাস্ট ডাঃ কাজী আবুল মনসুর ও মিসেস কাজী আনোয়ারা মনসুরের কন্যা লন্ডন প্রবাসী ডাঃ কাজী নাজমা করিম তার প্রয়াত ছোট ভাই খালেদ এবং বাবা ডাঃ কাজী আবুল মনসুরের স্বরণে প্রতিষ্ঠা করেন। ট্রাস্ট শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সমাজ কল্যান কাজে নিয়োজিত।

জনাব রাহনুমা আহমেদ, ট্রেজারার খালেদ মনসুর ট্রাষ্ট তার বক্তব্য জনাব ড. এম মনসুর এর জীবনের বিভিন্নদিক তুলে ধরেন। তিনি তার কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে নারী শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিতে অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন আমাদের সহযোগীতার হাত সবসময় বিস্তৃত থাকবে। আমরা সবসময় সকল সহযোগীতার হাত উন্মুক্ত রাখবো। ড. এস. এম খলিলুর রহমান, জেনারেল সেক্রেটারি, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন, তার বক্তব্য বলেন এই প্রতিষ্ঠান খুব অল্প সময়ে মধ্যে একটি শীর্ষ স্থানীয় প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হিসেবে পরিচয় লাভ করবে। এই প্রতিষ্ঠানের একজন যোগ্য হেড আছেন যিন তার দক্ষতা দিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে একটি যোগ্য নেতৃত্ব স্থানীয় পর্যায়ে নিয়ে যাবেন। তিনি উপস্থিত সকলের কাছে প্রতিষ্ঠানটির উন্নতির জন্যে দোয়া প্রার্থনা করেন।

ড. এম এহছানুর রহমান, নির্বাহী পরিচালক, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন তার বক্তব্য বলেন ড. এ. কে মনসুর আহ্ছানিয়া মিশন ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট মানব উন্নয়নের যাত্রায় একটি সংযোজন। দক্ষ কর্মী, ভালো মানুষ সমাজের উন্নয়নের জন্যে খুব প্রয়োজন। তিনি বলেন ১৯৫৮ সাল থেকে এ কার্যক্রম এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রমের পাশাপাশি দক্ষতা উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তিনি আরো বলেন, আমাদেরকে এখন নির্দিষ্ট ক্যাম্পাসের বাহিরে যেয়ে কিভাবে দূরশিক্ষণের মাধ্যেমে আমরা শিক্ষা পৌছে দিতে পারি সেই চিন্তাও করতে হবে। তিনি উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানান এবং তাদেরকে আরো বেশী দৃঢ় মনা হতে অনুরোধ জানান।

জনাব রাজিউল হাসান ড. এম মনসুর এর নিকট আত্মীয় ড. এম মনসুরের জীবনি নিয়ে আলোচনা করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সর্বশেষে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের কর্ণধার, প্রাণ পুরুষ জনাব কাজী রফিকুল আলম, প্রেসিডেন্ট, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন উপস্থিত সকলকে উক্ত অনুষ্ঠানে যোগদান করার জন্যে ধনবাদ জ্ঞাপন করেন। উক্ত প্রতিষ্ঠানটির সাথে সংশ্ল্ষ্টি সকলকে উক্ত প্রতিষ্ঠানের উন্নতি ও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যে সকল রকম সহযোগীতার ও প্রচেষ্টার জন্যে অনুরোধ জানান এবং প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষনা করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্ব শেষে জনাব কাজী রফিকুল আলম, প্রেসিডেন্ট, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ফিতা কেটে ইনস্টিটিউটের উদ্ধোধন করেন।

অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনায় ছিলেন জনাব শামীমা আখতার খান রুনি, শিক্ষক, এআইটিভেট, ডাম।